থোনোস করোনার জন্য দোষী?

ছবি: ইন্টারনেট থাকে সংগৃহিত

থোনোস যে তার এক তুড়িতে মহাবিশ্বের অর্ধেক লোককে গায়েব দিতে পারে, তাকে বলা হয়ে থাকে মহাজাগতিক শ্রেষ্ঠ ভিলেন যিনি মহাবিশ্বের প্রাণী কূলে অর্ধেক ধ্বংসের জন্য তার পুরো জীবনকে উৎসর্গ করেছেন। সে মূলত অ্যাভেঞ্জারস মুভির সেই সুপার ভিলেন।

একটি অর্ধ রান্না করা বাদুড় খেয়ে মানবসমাজে যে করোনভাইরাস এসেছে, তাকে থোনোসের সময় মতো ফিরে আসাও হতে পারে বলেও অনকে মনে করছে, এই মহাজগতের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতেই কি তবে থনোস করোনার রূপে ফিরে এসেছে, এমনটাই ধারণা করছেন অ্যাভেঞ্জারসের ভক্তরা, এই মারাত্মক ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে অনলাইনে ভক্তরা জিজ্ঞাসা করছে এটি কি থানসের চূড়ান্ত বিজয়?

এই পর্যন্ত করোনা নামক মহামারীটি চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পরার পর এখন গোটা বিশ্বে তাণ্ডব চালাচ্ছে। চীন পরিস্থিতি কিছুটা সামাল দিয়ে উঠলেও এখন ভুগছে ইউরোপ-আমেরিকা-এশিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের প্রায় ২৫ লাখ। এক লাখ ৭০ হাজার ছাড়িয়েছে মৃতের সংখ্যা। তবে সাড়ে ছয় লক্ষাধিক রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহান শহরে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হন ৮ মার্চ এবং এ রোগে আক্রান্ত প্রথম রোগীর মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ। ২৫ মার্চ প্রথমবারের মতো রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানায়, বাংলাদেশে সীমিত পরিসরে ‘কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বা সামাজিকভাবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হচ্ছে।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সাধারণ ছুটি ঘোষণার পাশাপাশি সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে; যার মূলে রয়েছে মানুষে মানুষে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। মানুষকে ঘরে রাখতে রাজপথের পাশাপাশি পাড়া-মহল্লায় টহল দিচ্ছে সশস্ত্র বাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশ।

Facebook Comments